ফনেটিক ইউনিজয়
বরিশাল অঞ্চলে রেললাইন হচ্ছে
খান রুবেল, বরিশাল

নদীবেষ্টিত দক্ষিণাঞ্চলে রেলপথ নির্মাণ করবে সরকার। এজন্য চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল মন্ত্রণালয়। পরিকল্পনা অনুয়ায়ী নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুর কল্যাণে সরাসরি রেলপথ যাবে ঢাকা থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা হয়ে বরিশাল দিয়ে পটুয়াখালীর পায়রা সমুদ্রবন্দর পর্যন্ত।
রেললাইন নির্মাণের জন্য সম্ভাব্যতা সমীক্ষা প্রকল্পের প্রিলিমিনারি ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট প্রপোজাল ‘পিডিপিপি’ প্রস্তুত করা হয়েছে। পিডিপিপি অনুযায়ী প্রকল্পের সম্ভাব্য ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে ৯ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারের নিজ অর্থায়ন ১ হাজার ৯৯৮ কোটি টাকা এবং প্রকল্প সাহায্য ধরা হয়েছে ৭ হাজার ৯৯২ কোটি টাকা। চীন সরকারের নমনীয় ঋণ অথবা যেকোনো উন্নয়ন সহযোগী দেশের অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রকল্পের বাস্তবায়নকাল ২০২১ সাল পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছে। এই সময় সীমার মধ্যেই এ কাজ শেষ করতে চায় সরকার।
রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্প্রতি কনস্ট্র্রাকশন অব ব্রডগেজ রেলওয়ে লাইন ফরম ভাঙ্গা টু বরিশাল ফিজিবিলিটি স্টাডি ফর বরিশাল টু পায়রা সি-পোর্ট সেকশন শীর্ষক প্রকল্পের পিডিপিপি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। এরপর তা একনেকে অনুমোদন হলে দরপত্র আহ্বান করবে রেল মন্ত্রণালয়।
এ অঞ্চলে  রেলপথ নির্মিত হলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় যোগাযোগ ব্যবস্থা আরও আধুনিক হবে। মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, নতুন রেললাইন নির্মাণ করা হলে পদ্মা সেতুর মাধ্যমে ঢাকা থেকে বরিশালের দূরত্ব কমে দাঁড়াবে ১৮৫ কিলোমিটার এবং ভ্রমণে সময় লাগবে মাত্র চার ঘণ্টা। তাই দিনের কাজ দিনেই শেষ করে গন্তব্যে ফিরতে পারবে সবাই।
রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, পায়রা সমুদ্রবন্দর দেশের দক্ষিণ উপকূলের সাগরপাড়ের জনপদের অর্থনৈতিক জীবনকে পাল্টে দেবে। দেশের গুরুত্বপূর্ণ বন্দরের সঙ্গে রেল যোগাযোগ জরুরি। এ রেলপথ নির্মিত হলে পুরো দক্ষিণাঞ্চলের স্থল পথের চিত্র পাল্টে যাবে।

Disconnect