ফনেটিক ইউনিজয়
প্রতিবন্ধী রবিউলের নিরন্তর পথচলা
ইমরান সোহেল, চট্টগ্রাম

শারীরিকভাবে অক্ষম হয়েও একজন মানুষ সফল হতে পারে সেটা দেখিয়েছেন প্রতিবন্ধী রবিউল হোসেন। নানা বাধা পেরিয়ে বর্তমানে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লক্সে কর্মরত আছেন। তিনি চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার আমিলাইষ ইউনিয়নের দক্ষিণ আমিলাইষ গ্রামের বাসিন্দা।
রবিউল হোসেন বলেন, ছোটবেলা থেকে আমার স্বপ্ন ছিল আমি লেখাপড়া করে শিক্ষিত হব। দেশের জন্য, নিজের জন্য কিছু করব। কিন্তু ছেলে বেলায় আমার বয়স যখন ১৩ বছর তখন এক দুর্ঘটনায় আমার জীবনের স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়। আমি শারীরিকভাবে অক্ষম হয়ে পড়ি। ভালো করে হাঁটতে পারি না, চলতে পারি না। এরপর আমি অনেক প্রতিকূলতার মধ্যেও লেখা পড়া শুরু করি। কারণ ছেলে বেলায় আমার বাবা মারা যান। আমার মা অনেক কষ্ট করে আমাদেরকে মানুষ করেন। অনেকে আমাকে ঘৃণা করে আবার অনেকে আমাকে সহযোগিতাও করে। তারপরও আমি থেমে থাকিনি। পথচলা শুরু করি। কারণ আমি অন্যের উপর নির্ভরশীল না হয়ে নিজে বাঁচতে চেয়েছি।
আমি এক হাতে ক্র্যাচ ধরে এসএসসি পাস করি। পরে এইচএসসি পাস করি। তারপর ২০১০ সালে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন এ চাকরির জন্য দরখাস্ত করি প্রতিবন্ধী কোটায়। তারপর অনেক প্রচেষ্টার বিনিময়ে ২৮ নভেম্বর ২০১০ তারিখ আমার চাকরি হয় সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। বর্তমানে আমি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত আছি।
তিনি আরো বলেন, বর্তমানে আমার একটি ইচ্ছে হচ্ছে, এই দেশের গরিব অসহায় প্রতিবন্ধী মানুষগুলোর জন্য কিছু করা। তাদের পাশে দাঁড়ানো। আর প্রতিবন্ধীরা সমাজের বোঝা নয় তারা হলো সমাজের সম্পদ। সবাই তাদের ভালোবেসে তাদের পাশে থাকুন।

Disconnect