ফনেটিক ইউনিজয়
মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবাহী গাড়িটি আজও সংরক্ষিত হয়নি
সাজেদ রহমান, যশোর

মুক্তিযুদ্ধে ব্যবহৃত জিপ গাড়িটি পড়ে আছে অযত্নে ‘জার্মানির ভক্সেল ভিভার’ ব্র্যান্ডের গাড়িটি ছিল যশোর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের (তৎকালীন নাম ছিল মোমিন গার্লস স্কুল)। স্বাধীনতা যুদ্ধের আগে গাড়িটি ব্যবহার করেছেন প্রাদেশিক পরিষদের মন্ত্রী এডভোকেট মশিউর রহমান। এই গাড়িতে চড়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ অনেক আওয়ামী লীগ নেতা। মুক্তিযুদ্ধের সময় এটি মুক্তিযোদ্ধাদের গোলাবারুদ বহনের কাজেও ব্যবহৃত হয়েছে। এই গাড়ির সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের অনেক স্মৃতি জড়িয়ে রয়েছে।
মুক্তিযুদ্ধ শুরুর দুইমাস পর থেকে গাড়িটি মূলত যুদ্ধের কাজে ব্যবহার করা শুরু হয়। সে সময় অস্ত্র বহন, মুক্তিযোদ্ধাদের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়ার কাজে ব্যবহার হতো গাড়িটি। যুদ্ধের পরও বছর দু’য়েক গাড়িটি সচল ছিল। আর ১৯৮০ সাল থেকেই স্কুলে পড়ে আছে গাড়িটি। জেলা প্রশাসনের তৎপরতায় যশোর সরকারি বালিকা বিদ্যালয় চত্বর থেকে  গাড়িটি উদ্ধার করা হয়। গাড়িটি সংরক্ষণে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের অর্থায়নে ৮৭ হাজার টাকা ব্যয়ে প্রকল্প নেয়া হয়। ২০১৭ সালের ১৪ই জুন তৎকালীন জেলা প্রশাসক ড. মো. হুমায়ুন কবীর প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়েছে প্রায় দেড় বছর আগে। কিন্তু আজও সেই কাজ সম্পন্ন হয়নি। আর সেই গাড়িটি পড়ে আছে শহরের একটি গ্যারেজে।
এ বিষয়ে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা নূরুল ইসলাম বলেন, সংরক্ষণের উপযোগী করে তোলার কাজটা শেষ হলেই, সংরক্ষণাগার নির্মাণ করে দেয়া হবে।
জেলা প্রশাসক আবদুল আউয়াল বলেন, প্রকল্পটি চলমান রয়েছে। বন্ধ হয়নি। তবে সংরক্ষণাগারের জায়গাটা একটি পরিবর্তনের চিন্তাভাবনা করছি। কারণ জনসাধারণের চলাচলের পথ রেখেই নির্ধারিত জায়গার একটু পাশে সংরক্ষণাগরটির নির্মাণ করা যায় কিনা, সেটি আমরা বিবেচনা করছি। অচিরেই কাজ সম্পন্ন হবে।

Disconnect