ফনেটিক ইউনিজয়
মধু চাষে সুরত আলীর সাফল্য
মো. মামুন চৌধুরী, হবিগঞ্জ

হবিগঞ্জ জেলা শহরের জঙ্গল বহুলার বাসিন্দা সুরত আলী (৫৫) মধু চাষ করে সফলতার মুখ দেখেছেন। কাঁঠাল কাঠের তৈরি বাক্সে চলছে তার মধু চাষ। বছরে প্রায় প্রায় তিন মণ মধু উৎপাদন করেন। এ মধু নিজের পারিবারিক চাহিদা মিটিয়ে বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। তার সংগ্রহ করা মধুতে কোনো প্রকারের কেমিক্যাল নেই। তাই তার মধু জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই মধু চাষ অনেকেরই নজর কেড়েছে। তার পরামর্শে এখন অনেকেরই বাড়ি বাড়ি মধু চাষ শুরু হয়েছে।
সুরত আলীর সঙ্গে আলাপকালে তিনি জানান- প্রায় ১০ বছর পূর্বে লোকমুখে শুনে মৌমাছির চাক সংগ্রহ করে সৌখিনভাবে নিজের খাবারের জন্য চাষ শুরু করেন। সফলতা পাওয়ার পরে তিনি বাণিজ্যিকভাবে চাষের চিন্তা করেন এবং প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন হবিগঞ্জ বিসিক শিল্প নগরী থেকে। এরপর থেকে তিনি মধু চাষে পুরোপুরি জড়িয়ে পড়েন। এখন তিনি চিন্তা করছেন কীভাবে এ চাষের পরিধি আরো বাড়ানো যায়। তাই তিনি বেকার লোকদের পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ দিয়ে মধু চাষে আকৃষ্ট করছেন। তার পরিশ্রম কাজে লাগছে। বেকাররা তার পরামর্শ নিয়ে নিজ বাড়িতে বাক্স তৈরি করে মধু চাষ শুরু করেছেন। তারাও সফলতা পাচ্ছেন।
বর্তমানে শহরের শায়েস্তানগর, মনপুর, তেঘরিয়া, অনন্তপুরসহ বিভিন্ন এলাকার বাড়িতে মধু চাষ হচ্ছে। তবে তারা এখনো বাণিজ্যিকভাবে চাষ শুরু করেননি।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ বিসিক এর সহকারী মহাব্যবস্থাপক বলেন, আমরা সুরত আলীর আগ্রহ দেখে তাকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে দিয়েছি। সরকারিভাবে তাকে আর্থিক সহায়তা করা প্রয়োজন।
হবিগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আলী জানান, সুরত আলী ব্যক্তি উদ্যোগে মধু চাষ করে সফলতা পাচ্ছেন। তার আগ্রহে অন্যের বাড়িতেও সফল মধু চাষ শুরু হয়েছে।

Disconnect